MakLife -ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য সুখবর!!!

পন্য পরিচিতি::
Maklife হচ্ছে রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রনে সহায়তা করে যা ভালো সাস্থের জন্য খুবই প্রয়োজনীয় ।

এটি লিপিট মেটাবলিমসকে নিয়ন্ত্রন করে এবং শরিরে সিরাম ট্রাইগ্লিসা রাইড ও কোলেস্টরেলর একটি সাস্থকর মাত্রা বজায় রাখতে সহায়তা করে ।

Maklife উপকারিতা মানবদেহে প্যানক্রিয়াটিক কোষের পুনরূৎপাদনের সাথে সরাসরি সম্পর্কিত ।

যদিও এতে ১৭ প্রকারেরও অধিক সুপরিচিত গবেষনালব্ধর পুষ্টিগুন সমৃদ্ধ ভেষজ উপাদনি আছে তারপরও Maklife হচ্ছে বহু বছরের কঠোর গবেষণা ও উন্নয়নের ফলাফল।

ইহা বিশেষ ভাবে তৈরি করা হয়েছে ঐ সকল ব্যাক্তির জন্য যাদের রক্তে শর্করার পরিমান সার্বক্ষণিক নিয়ন্ত্রনে রাখতে হয় এবং মানবদেহে যে সকল অঙ্গপ্রতঙ্গ সাধারণ রক্তে শর্করার ভারসাম্যহীনতার জন্য প্রভবিত হয় তাদের কার্য ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

MakLife কিভাবে কাজ করে ?
MakLife ১৭ ধরনেরও অধিক ভেষজ উপাদান দ্বারা তৈরী যা রক্তের শর্করা স্বাভাবিক মাত্রা নিয়ন্ত্রনে এবং দেহের সাস্থ সুরক্ষায় সহায়তা করে থাকে । এর ফর্মূলায় প্রাকৃতিক উদ্ভিদ তন্তু (Plant Fiber) থাকায় এটি অন্ত্রের গ্লকোজ শোষনে বাধা দেয়, শর্করা বেড় করে দেয় এবং সমস্যাগুলোকে তার গোড়া থেকে নির্মূল করতে সহায়তা করে।

ফলস্বরূপ, রক্তে শর্করার সুষম মাত্রা নিয়ন্ত্রিত হয় এবং গ্লকোজের স্থিতিশীল মাত্রা নিয়ন্ত্রিত হয়।

উপরন্তু Maklife এ আছে শক্তিশালী পুষ্টি ও এন্ট্রিএক্সিডেন্ট যা দেহের প্যানক্রিয়াটিক কোষ ও অন্যান্য গুরূত্বপূর্ণ অঙ্গের সাস্থকর কার্যকারিতা বজায় রাখে।

আরো উল্লেখযোগ্য, প্রাকৃতিক পুষ্টি দেহে উপলুব্ধ ইনসুলিনের কার্যক্রম শক্তিশালী করার মাধ্যমে কোষে গ্লকোজের শোষন বৃদ্ধি করে।

এই সাপ্লিমেন্টটি সম্পুর্ন পুষ্টিবিজ্ঞানের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা, এবং এটি তৈরি করা হয়েছে দীর্ঘদিনের গবেষণার মাধ্যমে বিশেষভাবে নির্বচিত উৎপাদন দ্বারা, যা দেহের রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রনে সবচেয়ে কার্যকরি ।

এর একটি প্রধান উপাদান জাম্বোলান দানা বা Syzygium cuminii গত ১২৫ বছর ধরে গবেষণায় ১০০ এর অধিক ফলাফল পাওয়া গেছে। National Institute of Health library এর একটি প্রকাশনা থেকে পাওয়া যায়, জাম্বোলন সীড মানবদেহ থেকে ৩০% পর্যন্ত রক্তের শর্করা কমাতে সক্ষম।

MakLife সেবনের উপকারিতা কার্যকারীতাঃ
 ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রনে আনে।
 প্যানক্রিয়াসের কর্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে।
 ইনসুলিনের উৎপাদন বৃদ্ধি করে ।
 ব্যাহ্যিকভাবে ঔষধ বা ইনসুলিনের গ্রহনের মাত্রা ক্রমান্বয়ে কমিয়ে আনে ।
 গ্যাংরিন বা ডায়াবেটিস জনিত ইনফেকসন কমাতে সাহায্য করে ।
 মিষ্টি খাদ্যের প্রতি আর্কষণ কমায় ।
 শরীরের আদর্শ ওজন বজায় রাখে ।
 চর্বির বিপাকক্রিয়ার সহায়তা করে ।

MakLife এর উপাদার সমূহের বিবরণঃ
American Herbel Products Association (AHPA) দ্বারা চিহ্নিত ও পরীক্ষিত।

মূল মিশ্রণঃ আমলকি, বিটার মেলন (করলা), আলফালফা, মেথি, চিরতা, কালোজিরা, রসুন, জাম্বোলান সীড, জিমনেমা সিলভেস্ট্রি এবং আরও অনেক পুষ্টিগুন সমৃদ্ধ উপাদান।

Gooseberry: আমলকি হচ্ছে ভিটামিন সি এর ভান্ডার। শুধুমাত্র ১০০ গ্রাম আমলকি ৬০০ মিলিগ্রাম পর্যন্ত এই প্রতিরক্ষামূলক ভিটামিনটি ধারন করে।

আমলকিতে প্রাকিৃতিক প্রটেক্টর থাকায় ভিটামিন সি তাপ ও বাতাসে সহজে নষ্ট হয়না।

বলা হয়ে থাকে, প্রতিদিন একটি করে আমলকি সেবনে সারা বছর ইনফেকশ বা সংক্রমনের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।

আমলকিতে যে ওপরিমান ভিটামিন সি থাকে তা দেহের ভালো কলেস্টরলের মাত্রা বাড়ায়, উচ্চ রক্তচাপ কময়, রক্তে মর্করার

পরিমান স্থির রাখে, এবং ত্বক ও চুলের সাস্থ রক্ষা করে।

Methi: মেথি দানা ৫০ শতাংশ ফাইবার ধারণ করে যা রক্তের কোলেস্টরল ও ট্রাইগ্লিসারাইড নিয়ন্ত্রনে সহায়তা করে যা ডায়াবেটিস এর জন্য বিশেষ উপকারী।

মেথি দানাতে আরও আছে এল্কালাইড যা রক্তে চিনির পরিমান কমাতে সহায়তা করে থাকে।

সেবন বিধিঃ খাবারের ৩০ মিনিট আগে ১ থেকে ২ চা চামচ পাউডার দৈনিক ২ বার করে সেবন করুন।

Bitter Melon: বিটার মেলন বা করলা যদিও ইনসুলিন ইনজেকশনের প্রয়োজন সম্পর্ণরূপে অপসারন করতে সমর্ত নয়, তারপরও এর রায়সানিক উপাদানগুলোর একটি, টাইপ ১- ডায়াবেটিস রোগীদের রক্তের শর্করার পরিমান নিয়ন্ত্রন করতে পারে।

পলিপেপটাইপ-পি চর্বিকে চর্বিকোষের মাধ্যমে শোষণ করাকে সমর্থন করেনা, যেমনটি ইনসুলিন করে থাকে তাই টাইপ-১ ডায়াবেটিস রোগীরা যে ইনসুলিন প্রতিদিন গ্রহন করে থাকে তা সহজেই এটি প্রতিস্থাপন করতে পারে, এমটি দাবি করছেন ফিলিস এ. বালচ, সার্টিফাইড নিইট্রিসনাল কনসালটেন্ড এবং “প্রেসক্রিপসন ফর হারবাল হিলিং’’ এর রচয়িতা।
বিটার মেলন বা করলার আর একুটি উপাদান হচ্ছে ক্যারাটিন। বালচ্ দাবী করেন, ক্যারাটিন বিটার মেলন বা করলাকে টলবুটামাইড, যা কিনা টাইপ-২ ডায়াবেটিস এর জন্য একটি জনপ্রিয় ঔষধ তা থেকেও বেশী কার্যকরী করে তোলে।

Garlic: আদুনিক বিজ্ঞানে দেখা যায় রসুন একটি শক্তিশালী প্রাকৃতিক এন্টিবায়েটিক।

সাধারনত শরীরের ব্যাকটেরিয়াগুলো রসুনের প্রাকৃতিক এন্টিবায়েটিকের প্রতি সহজে প্রতিরোধ গড়ে তোলতে পারেনা যেমনটি অন্য অনেক আধুনিক র্ফামাসিউটিক্যালসের এন্ট্রিবাওয়োটিকের ক্ষেত্রে করতে পারে।

অর্থ্যাৎ এন্ট্রিবায়োটিক প্রতিরোদী “Suparbugs’’ গঠন করতে সহয়তা না করে এটি দেহের পজেটিভ সাস্থ সুরক্ষা দীর্গদিন বজায় রাখতে সহয়তা করে।

রসুনের বহু স্ব্যাস্থ্য উপকারিতা বহু আর থেকেই দাবী করা হচ্ছে এবং এর মধ্যে রসুনের সাম্ভাব্য ও সবচেয়ে আর্কষণীয় গুনাগুন গুলো হলো এটি মানবদেহে রক্তচাপ, কলেস্টরল ও শর্করার পরিমান নিয়ন্ত্রনে রাখতে সহায়তা করে।

Jambiz: আধুনিক বিজ্ঞান জামুন এর উপর গুরুত্বারোপ করে থাকে এর রক্তের শর্করা ও গ্লকোজ নিয়ন্ত্রনের বৈশিষ্ট্যর কারনে, জার্মানির মারবার্গে অবস্থিত ফিলিপস বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন সু পরিচিত অধ্যাপক হেডমাস্টার বলেছেন, ইনসুলিন আবিস্কারের আগে ডায়াবেটিস টাইপ-২ রোগীদের ক্ষেত্রে জামুন এর ব্যাবহার ব্যাপক ভাবে স্বীকৃত ছিল।

তার মতে জামুন দানা ৩০% পর্যন্ত গ্লকোজ কমতে পারে এরূপ প্রত্যাশা করা যায়।

জামুনদানার একটি প্রধান উপাদান জাম্বোলাইন নামক ক্যামিকেলে একক ভাবে কোন ডায়বেটিক প্রতিরোদী বৈশিষ্ট দেখা যায়না, কিন্ত যখন এটি ক্যাটালাইঠিক কার্যক্রমে অংশ নেয় এবং জামুনের অন্যান্য অজৈব ও নিস্ক্রিয় উপাদানের সাথে জোট হয় তখন এতে ডায়াবেটিস প্রতিরোদী ক্ষমতা দেখার যায়।

জামুন ইনসুলিনের কার্যকারীতা ও সংবেদনশীলতা বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে ।

পাশাপাশি এটি ইনসুলিন নির্বরশীল ও অনির্বরশীল ২ ধরনের টাইপ-২ ডাঢাবেটিকস এর জন্যই কার্যকরী।

Black seed oil: কালোজিরার তেল আপনার দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। গবেষণায় দেখা গেছে, নিয়মিত কালোজিরা সেবনে এটি মানবদেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। যাদের ইম্যুন সিস্টেম দূর্বল তাদের জন্য এটি বিশেষ উপকারী।

জার্মান বিজ্ঞানিরা তাদের গবেষণায় কালাজিরাতে ফসফোলিপিডস পেয়েছেন এবং আবিস্কর করেছেন, কালোজিরার তেল কোলেস্টরল জমা হতে দেয়না।

Alfalfa Leaf: বহু বছর ধরে বিশ্বব্যাপি আলফালফা ব্যাবহৃত ও প্রশংশিত হয়ে আাসছে।

এর অনেক গুনাগুন আছে, এর গুনাগুনের তালিকা করতে গেলে তা অনেক দীর্ঘ হবে, নিম্নে আলফালফা এর কিছু গুনাগন

উল্লেখ করা হলোঃ
 মুত্রনালীর টক্সিন পরিস্কার করে।
 রক্ত ও যকৃত পরিশোধন করে।
 দেহে শক্তিশালী এল্কলাইন তৈরি করে ।
 বিপাকক্রিয়া শক্তিশালী করে এবং Bowel Movement নিয়ামিত করে।
 হজম সমস্যা দূর করে এতে খাদ্য হজম ও পরিপাকে সহায়ক উচ্চ এনজাইম আছে।
 দেহে কোলেস্টরল কমায়।
 এথিরোস্ক্লেরোটিক প্লাক এর বিস্তার হ্রাস করে।
 রক্তে শর্করার সাস্থকর মাত্রা ধরে রাখতে সহায়তা করে আর এ কারনেই ডায়াবেটিক নিয়ন্ত্রনে থাকে বা বাড়তে দেয় না, এবং পিটু্ইটারি গ্রন্থিকে সহায়তা করে।

Chirata: চিরতা একটি ঔষধি গাছ বহুকাল আগ থেকে ই মানুষ মাটির উপরে এর যে অংশটি থাকে তা ঔষধ হীসাবে ব্যাবহার করে আসছে, বিভিন্ন রোগে চিরতার ব্যাবহার আছে। জ্বর, কৌষ্ঠকাঠিন্ন, পেট খারাপ, অরুচি, আন্ত্রিক কৃমি, চর্মরোগ, ডায়াবেটিকস, এবং ক্যান্সার উপশমে চিরতা ব্যবহৃত হয়ে থাকে।

Gymnema Sylvestra: জিমনেমা সিলভেস্ট্রিও এর পাতায় জিমনেমিক এসিড থাকে যা গ্লুকোজকে অন্ত্র থেকে রক্তে প্রবাহিত করে থাকে।

এটি রক্তে চিনির পরিমান এবং Hemoglobin A l c এর পরিমান কমাতে সহায়তা করে।

জিমনেমা সিলভেস্ট্রি অগ্নাশয়ের বেটা কোষকে সংস্কার পূনরূপাদিত করতে এবং ইনসুলিন তৈরিতে সহায়তা করে।

গবেষণায় দেখা গেছে, জিমনেমা সিলভেস্ট্রি নির্যাস টাইপ-১ ও টাইপ-২ দুই ধরনের ডায়াবেটিকসের জন্যই কার্যকরি।

একটি ক্লিনিক্যাল পরিক্ষায় ২২ জন টাইপ-২ ডায়াবেটিকস রোগী যারা নিয়মিত ডায়াবেটিকসের ঐষধ সেবন করছিলো তাদেরকে ঔষধের পাশাপাশি দৈনিক ৪০০ মিলিগ্রাম করে জিমনেমা সিলভেস্ট্রি নির্যাস (GS4) সেবন করানো হয়।

অংশগ্রহনকারীদের মধ্যে রক্তের শর্করা, হেমোগ্লোবিন এ১সি এবং গ্লাইকোসোলেটেড প্লাজমা প্রোটিন এর মাত্রা উল্লেখযোগ্য পরিমানে হ্রাস হতে দেখা যায়।

বাংলাদেশসহ বিশ্বের যেকোনো প্রান্ত থেকে পন্য পেতে ফোন করুন-  88 01 624 624 624